মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

৩১নং সাতাশি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

সুসং দুর্গাপুর উপজেলার পূর্ব সীমান্তে চন্ডিগড় ইউনিয়নের সাতাশি বাজারের দক্ষিণ পার্শ্বে নীচু এলাকায় বিদ্যালয়টি অবস্থিত। জানা যায় ১৯৭৪ সালে এলাকার একজন বিদ্যানুরাগী ব্যক্তি মোঃ খালেক চৌধুরী সাহেবের দানকৃত ভূমির উপর এলাকার সার্বিক সহযোগিতায় বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। প্রথমে এটি একটি চালাঘরে চলতে থাকে। উক্ত প্রতিষ্ঠানের সূচনা লগ্নে ০৩ জন সুযোগ্য শিক্ষক দ্বয়ের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালিত হয়।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ আবু বকর সিদ্দিক ০১৯২৫-০৩২৯৮০ Satasi.Gov.Pri.School.chondigarh_durgapur@yahoo.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ আবুল কালাম আজাদ ০১৭২২-২০৩২১৮ Satasi.Gov.Pri.School.chondigarh_durgapur@yahoo.com
মাহমুদা আক্তার লিপি ০১৭১১-৭১০৪০০ Satasi.Gov.Pri.School.chondigarh_durgapur@yahoo.com
জ্যোৎস্না বেগম ০১৭৩৪-২২৫৩৭৫ Satasi.Gov.Pri.School.chondigarh_durgapur@yahoo.com
স্মৃতি ঘোষ ০১৯১৮-৭৩২৭৩২ Satasi.Gov.Pri.School.chondigarh_durgapur@yahoo.com
মোঃ মুস্তাফিজুর রহমান ০১৭২২-৬০১২২৪ Satasi.Gov.Pri.School.chondigarh_durgapur@yahoo.com

শ্রেণী

ছাত্র সংখ্যা

ছাত্রী সংখ্যা

মোট ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা

শিশু

১৯

১১

৩০

১ম

৩৭

৫৭

৯৪

২য়

৩৬

৬২

৯৮

৩য়

৩০

৫৭

৮৭

৪র্থ

৩১

২৪

৫৫

৫ম

১২

১২

২৪

মোট=

১৬৫

২২৩

৩৮৮

১০০%

ক্রমিক নং

সদস্য/সদস্যাগণের নাম

পদবী

০১।

মোঃ রুস্তম আলী

সভাপতি

০২।

মোঃ আঃ খালেক চৌধুরী

সহ-সভাপতি

০৩।

মোঃ আবু বকর সিদ্দিক

সদস্য সচিব

০৪।

জ্যোৎস্না বেগম

সদস্য

০৫।

হাফিজ উদ্দিন

সদস্য

০৬।

জ্যোৎস্না বেগম

সদস্য

০৭।

শাহনাজ বেগম

সদস্য

০৮।

মোছাঃ রহিমা খাতুন

সদস্য

০৯।

মোছাঃ জহুরা খাতুন

সদস্য

১০।

মোছাঃ আনোয়ারা খাতুন

সদস্য

১১।

মোঃ রোকন উদ্দিন

সদস্য

সন

পরীক্ষার্থীর সংখ্যা

উত্তীর্ণ

অনুত্তীর্ণ

পাশের হার

বৃত্তিপ্রাপ্ত সংখ্যা

২০০৭

২৮

২১

০৭

৭৫%

ট্যালেন্টপুল ০১

২০০৮

১৯

১৯

-

১০০%

-

২০০৯

১৩

১৩

-

১০০%

-

২০১০

২০

২০

-

১০০%

-

২০১১

২৩

২৩

-

১০০%

-

প্রতিষ্ঠানটি শুরু লগ্ন থেকেই ‘বি’ গ্রেড ভূক্ত। বিদ্যালয়টি নিচু এলাকায় অবস্থিত বলে এলাকাটি বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে চিহ্নিত। প্রতিষ্ঠানটি ঘনবসতি পূর্ণ এলাকায় অবস্থিত বলে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা বেশী। বিদ্যালয়ের একটি ভবন খুবই নিচু হওয়ায় ভারী বৃষ্টি ও বন্যার পানি শ্রেণী কক্ষে প্রবেশ করে পাঠদান কার্যক্রমে বিঘ্ন সৃষ্টি করে। বর্তমানে শিক্ষকদের আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় বিদ্যালয়ের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল ৭৫% থেকে বিগত ৪ বছর ধরে ১০০% উন্নীত হয়েছে। কিন্তু শ্রেণীক্ষ সল্পতার দরুন পাঠদান কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। অন্যদিকে বিদ্যালয় এলাকাটিতে শিক্ষার হার খুবই কম হওয়ায় নাগরিক সচেতনতা খুবই কম। তাই নাগরিক সচেতনা বৃদ্ধি ও বিদ্যালয়ের ভৌত কাঠামোগত অবস্থার উন্নয়ন হলে বিদ্যালয়টি ‘‘এ’’ গ্রেডে উন্নীত হবে।

প্রতিষ্ঠানটি শুরু লগ্ন থেকেই ‘বি’ গ্রেড ভূক্ত। বিদ্যালয়টি নিচু এলাকায় অবস্থিত বলে এলাকাটি বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে চিহ্নিত। প্রতিষ্ঠানটি ঘনবসতি পূর্ণ এলাকায় অবস্থিত বলে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা বেশী। বিদ্যালয়ের একটি ভবন খুবই নিচু হওয়ায় ভারী বৃষ্টি ও বন্যার পানি শ্রেণী কক্ষে প্রবেশ করে পাঠদান কার্যক্রমে বিঘ্ন সৃষ্টি করে। বর্তমানে শিক্ষকদের আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় বিদ্যালয়ের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল ৭৫% থেকে বিগত ৪ বছর ধরে ১০০% উন্নীত হয়েছে। কিন্তু শ্রেণীক্ষ সল্পতার দরুন পাঠদান কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। অন্যদিকে বিদ্যালয় এলাকাটিতে শিক্ষার হার খুবই কম হওয়ায় নাগরিক সচেতনতা খুবই কম। তাই নাগরিক সচেতনা বৃদ্ধি ও বিদ্যালয়ের ভৌত কাঠামোগত অবস্থার উন্নয়ন হলে বিদ্যালয়টি ‘‘এ’’ গ্রেডে উন্নীত হবে।

প্রতিষ্ঠানটি শুরু লগ্ন থেকেই ‘বি’ গ্রেড ভূক্ত। বিদ্যালয়টি নিচু এলাকায় অবস্থিত বলে এলাকাটি বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে চিহ্নিত। প্রতিষ্ঠানটি ঘনবসতি পূর্ণ এলাকায় অবস্থিত বলে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা বেশী। বিদ্যালয়ের একটি ভবন খুবই নিচু হওয়ায় ভারী বৃষ্টি ও বন্যার পানি শ্রেণী কক্ষে প্রবেশ করে পাঠদান কার্যক্রমে বিঘ্ন সৃষ্টি করে। বর্তমানে শিক্ষকদের আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় বিদ্যালয়ের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল ৭৫% থেকে বিগত ৪ বছর ধরে ১০০% উন্নীত হয়েছে। কিন্তু শ্রেণীক্ষ সল্পতার দরুন পাঠদান কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। অন্যদিকে বিদ্যালয় এলাকাটিতে শিক্ষার হার খুবই কম হওয়ায় নাগরিক সচেতনতা খুবই কম। তাই নাগরিক সচেতনা বৃদ্ধি ও বিদ্যালয়ের ভৌত কাঠামোগত অবস্থার উন্নয়ন হলে বিদ্যালয়টি ‘‘এ’’ গ্রেডে উন্নীত হবে।

প্রতিষ্ঠানের যোগাযোগ ব্যবস্থা মোটামোটি ভাল। উপজেলা সদর থেকে বিদ্যালয়টি ১১ কিঃমিঃ দূরে অবস্থিত। উপজেলা থেকে পায়ে হেঁটে, রিক্সা করে, টেম্পু ষ্টেশানে আসতে হয়। সেখান থেকে মাকড়াইল চন্ডিগড় হয়ে রিক্সা, টেম্পু বা ভ্যান যোগে বিদ্যালয়ে আসতে হয়।